• Breaking News

    LOGIC SEARCH ENGINE

    AGE CALCULATOR || বয়সের হিসেব

    বাক্যকে বচনে পরিনত করার নিয়ম কি?

    Sunday, April 28, 2019

    বাক্যকে বচনে পরিনত করার নিয়ম কি?

    Proposition Rules

    Proposition Rules





    Proposition Rules

    বাক্যকে বচনে পরিনত করার নিয়ম কি?

    বাক্যকে বচনে পরিনত করার নিয়মাবলি :-

    বাক্যকে বচনে পরিনত করা নিয়ম হল :- ১) বাক্যকে বচনে রুপান্তরিত করার সময় বাক্যটির মূল অর্থের কোনো পরিবর্তন করা চলবে না। মূল অর্থের দিকে লক্ষ রেখে বাক্যের আকারের পরিবর্তন করা যেতে পারে। অর্থাৎ , যে অর্থটি ব্যাকরণ বাক্যের মধ্যে রয়েছে ঠিক সেই অর্থটি যৌক্তিক বচনে পরিবর্তিত করার পর বজায় রাখতে হবে।



    ২) ব্যাকরণগত বাক্যকে যৌক্তিক বচনে পরিবর্তন করার সময় বচনের চারটি অংশকে নির্দিষ্ট করে উল্লেখ রাখতে হবে। বচনের ৪ টি অংশ হল --

    1. পরিমানক
    2. উদ্দেশ্য পদ
    3. সংযোজক
    4. বিধেয় পদ

    বচনের ৪ টি অংশ
    পরিমানক
    উদ্দেশ্য পদ
    সংযোজক
    বিধেয় পদ
    সকল
    শিশু
    হয়
    সরল
    কোনো
    কাক
    নয়
    সাদা
    কোনো কোনো
    লেখক
    হয়
    কবি
    কোনো কোনো
    মানুষ
    নয়
    সৎ



    ৩) ব্যাকরনগত বাক্যকে যৌক্তিক বচনে পরিবর্তিত করার সময় গুনটিকে সুস্পষ্ট উল্লেখ করতে হবে।


    ৪) ব্যাকরণগত বাক্যকে যৌক্তিক বচনে পরিবর্তিত করার সময় পরিমানে সুস্পষ্ট উল্লেখ রাখতে হবে। অর্থাৎ, বচনটি সামান্য না বিশেষ তা উল্লেখ করতে হবে ।


    ৫) ব্যাকরনগত বাক্যকে যৌক্তিক বচনে পরিবর্তিত করার সয়ম সংযোজকটি সব সময় “হওয়া” (To Be) ক্রিয়ার বর্তমান কালের রূপ হবে।
    যেমন:- হয় , হচ্ছে , হলো , হন ইত্যাদি।



    ৬) যে সমস্ত বাক্যের সাথে সব , সকল , সমস্ত , প্রত্যেক , প্রতিটি , যে-কোনো , যে-কেহ , যে-সে ইত্যাদি শব্দগুলি মধ্যে যে কোনো একটি শব্দ থাকে এবং যদি বাক্যটি সদর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'O'বচনে পরিনত করতে হবে।



    যেমন:-

    1. প্রতিটি শিশু সরল।
      • L.F “A” : সকল শিশু হয় সরল।
    2. সব চকচকে বস্তু সোনা নয়।
      • L.F “O” : কোনো কোনো চকচকে বস্তু নয় সোনা।
    3. সব মানুষই ভুল করে।
      • L.F “A” : সকল মানুষ হয় এমন যারা ভুল করে।
    4. সমস্ত গল্প বিশ্বাসযোগ্য নয়।
      • L.F “O” : কোনো কোনো গল্প নয় বিশ্বাসযোগ্য।
    5. যে-সে এই পদের যোগ্য নয়।
      • L.F “O” : কোনো কোনো ব্যক্তি নয় এই পদের যোগ্য।
    6. যে-কেউ এই কাজটি করতে পারে।
      • L.F. "A": সকল ব্যক্তি হয় এমন যারা এই কাজটি করতে পারে।
    7. যে-কোনো ফুলই গন্ধযুক্ত নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো ফুল নয় গন্ধযুক্ত।
    8. প্রত্যেক খেলোয়াড়ই দক্ষ।
      • L.F. "A": সকল খেলোয়াড় হয় দক্ষ।
    9. প্রত্যেক মানুষ সৎ নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো মানুষ নয় সৎ।
    10. প্রতিটি মানুষ মরনশীল।
      • L.F. "A": সকল মানুষ হয় মরণশীল জীব।
    11. সব মানুষই অসৎ নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো মানুষ নয় অসৎ।
    12. সব রোগ মারাত্মক নয় ।
      • L.F. "O": কোনো কোনো রোগ নয় মারাত্মক ।
    13. সমস্ত লোক স্বার্থপর নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো লোক নয় স্বার্থপর ব্যক্তি।
    14. সমস্ত কাক কালো নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো কাক নয় কালো।
    15. সকল বহ্নিমান স্থান ধুমবান নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো বহ্নিমান স্থান নয় ধুমবান।




    ৭) যে সমস্ত বাক্যের সাথে সর্বদা , সর্বত্র , নিশ্চিয় , অবশ্যই , একান্তভাবে , সুনিশ্চিতভাবে , যদি-তবে , যেখানে-সেখানে , মাত্রেই ইত্যাদি শব্দগুলির মধ্যে যে কোনো একটি শব্দ থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'O' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. সাধু ব্যক্তিরাই সর্বদা সম্মানিত হন।
      • L.F. "A": সকল সাধু ব্যক্তি হয় সম্মানিত।
    2. দার্শনিক সর্বদাই চিন্তাশীল ব্যক্তি।
      • L.F. "A": সকল দার্শনিক হন চিন্তাশীল ব্যক্তি।
    3. মানুষ আবশ্যিকভাবে স্বার্থপর।
      • L.F. "A": সকল মানুষ হয় স্বার্থপর।
    4. বিদ্বান সর্বত্র পূজ্য।
      • L.F. "A": সকল বিদ্বান ব্যক্তি হন পূজ্য ব্যক্তি।
    5. ধর্মের জয় সর্বত্রই।
      • L.F. "A": সকল ক্ষেত্রে ধর্ম হয় জয়ের বিষয়।
    6. সাধুরা একান্তভাবে সৎ।
      • L.F. "A": সকল সাধু হয় সৎ।
    7. স্ত্রীলোকগণ একান্তভাবে পুরুষ অপেক্ষা নিকৃষ্ট নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো স্ত্রীলোক নয় পুরুষ অপেক্ষা নিকৃষ্ট ।
    8. মানুষ মাত্রেই দার্শনিক।
      • L.F. "A": সকল মানুষ হয় দার্শনিক।
    9. মানুষ মাত্রেই সুখী।
      • L.F. "A": সকল মানুষ হয় সুখী।
    10. বাক্য মাত্রেই বচনের উৎস স্বরূপ।
      • L.F. "A": সকল বাক্য হয় বচনের উৎস স্বরূপ।
    11. যদি মেঘ করে তবে বৃষ্টি হয়।
      • L.F. "A": সকল মেঘ করার ক্ষেত্র হয় বৃষ্টি হওয়ার ক্ষেত্র।
    12. যদি কোন দেশ স্বাধীন হয়, তবে সেই দেশ উন্নতিশীল।
      • L.F. "A": সকল স্বাধীন দেশ হয় উন্নতিশীল দেশ।
    13. যেখানেই ধুম সেখানেই বহ্নি ।
      • L.F. "A": সকল ধুমময় স্থান হয় বহ্নিমান স্থান ।
    14. যেখানে ইচ্ছা সেখানেই উপায়।
      • L.F. "A": সকল ইচ্ছার ক্ষেত্র হয় উপায়ের ক্ষেত্র।
    15. ছাত্ররা একান্তভাবে বিনয়ী নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো ছাত্র নয় এমন যারা বিনয়ী।




    ৮) যে সমস্ত বাক্যের সাথে নয় , নহে , নন , নেই , কোনোটাই নয় , কেউ নয় , কখনো নয় , কদাপি নয় --- এই জাতীয় শব্দ যদি কোনো বাক্যে থাকে তাহলে 'E' বচনে রুপান্তরিত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. মানুষ কখনো দেবতা নয়।
      • L.F. "E" : কোনো মানুষ নয় দেবতা।
    2. সাদা কাক নেই।
      • L.F. "E" : কোনো কাক নয় সাদা ।
    3. মানুষ পূর্ণ নয়।
      • L.F. "E" : কোনো মানুষ নয় পূর্ণ।
    4. মানুষ কখনোই পাখি নয়।
      • L.F. "E" : কোনো মানুষ নয় পাখি।
    5. ত্রিভুজ বৃত্ত নয়।
      • L.F. "E" : কোনো ত্রিভুজ নয় বৃত্ত।
    6. মানুষ পূর্ণ নয়।
      • L.F. "E" : কোনো মানুষ নয় পূর্ণ।
    7. যা লাল তা নীল নয়।
      • L.F. "E" : কোনো লাল বস্তু নয় নীল।




    ৯) যে সমস্ত বাক্যের সাথে কোনো কোনো , কিছু কিছু , কতিপয় , বেশির ভাগ , অনেক , শতকরা , প্রায় , প্রায়শ , মাঝে মাঝে ,সাধারনত , একটি ছাড়া সব , সচরাচর , কখনো কখনো ইত্যাদি শব্দগুলির মধ্যে যে-কোনো একটি শব্দ থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'I' বচনে পরিনত করতে হবে।
    কিন্তু , বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'O' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. কিছু ফল মিষ্টি নয়।
      • L.F. "O" : কোনো কোনো ফল নয় মিষ্টি।
    2. মানুষ কখনো কখনো নিষ্ঠুর হয়।
      • L.F. "I" : কোনো কোনো মানুষ হয় নিষ্ঠুর।
    3. মানুষ মাঝে মাঝে দিশেহারা হয়।
      • L.F. "I" : কোনো কোনো মানুষ হয় দিশেহারা।
    4. কিছু সংখ্যক ছাত্র বিনয়ী নয়।
      • L.F. "O" : কোনো কোনো ছাত্র নয় বিনয়ী ছাত্র।
    5. ৩০% ছাত্র পাশ করেছে।
      • L.F. "I" : কোনো কোনো ছাত্র হয় এমন যারা পাশ করেছে।
    6. কিছু কিছু ছাত্র বিতর্কে দক্ষ।
      • L.F. "I": কোনো কোনো ছাত্র হয় বিতর্কে দক্ষ।
    7. সাধারনত লেখকেরা কবি হয়।
      • L.F. "I": কোনো কোনো লেখক হয় কবি।
    8. প্রায় সব মানুষই স্বার্থপর।
      • L.F. "I": কোনো কোনো মানুষ হয় স্বার্থপর ব্যক্তি।
    9. একটি ছাড়া সব ধাতুকঠিন।
      • L.F. "I": কোনো কোনো ধাতু হয় কঠিন।
    10. অনেক ব্যাগ লাল।
      • L.F. "I": কোনো কোনো ব্যাগ হয় লাল বর্ণের।




    ১০) যে সমস্ত বাক্যের সাথে কদাচিৎ , কিঞ্চিত , ক্বচিৎ , খুব কম সংখ্যক , খুব অল্প সংখ্যক , অতি অল্পসংখ্যক , স্বল্পসংখ্যক ইত্যাদি শব্দগুলি মধ্যে যে কোনো একটি শব্দ থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'O' বচনে এবং নঞর্থক হলে 'I' বচনে পরিনত করতে হবে।

    তবে এক্ষেত্রে , একটি কথা মনে রাখতে হবে যে , খুব কম সংখ্যক এবং খুব অল্প সংখ্যক এই শব্দ দুটির অর্থ শুধুমাত্র 'I' বচন হয় না। আবার , শুধুমাত্র 'O' বচনেও হয় না। এক্ষেত্রে ইংরেজি ভার্সেন লক্ষ করে বচনে পরিনত করতে হবে।

    অর্থাৎ , উক্ত শব্দ দুটি অর্থ যদি 'Few' থাকে তাহলে 'O' বচনে পরিনত করতে হবে এবং যদি 'A few' হয় তাহলে 'I' বচনে পরিনত করতে হবে।
    আবার , যদি 'few not' যুক্ত থাকে তাহলে 'I' বচনে এবং যদি 'A few not' যুক্ত থাকে তাহলে 'O' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. মানুষ কদাচিৎ আত্ম নির্ভরশীল।
      • L.F. "O" : কোনো কোনো মানুষ নয় আত্ম নির্ভরশীল।
    2. মানুষ কদাচিৎ সৎ।
      • L.F. "O" : কোনো কোনো মানুষ নয় সৎ ব্যক্তি।
    3. মানুষ কদাচিৎ সৎ নয়।
      • L.F. "I" : কোনো কোনো মানুষ হয় সৎ ব্যক্তি।
    4. খুব কম সংখ্যক (few) বালক চালাক।
      • L.F. "O" : কোনো কোনো বালক নয় চালাক।
    5. খুব কম সংখ্যক (few)ছাত্র বুদ্ধিমান নয় । (not)
      • L.F. "I" : কোনো কোনো ছাত্র হয় বুদ্ধিমান।
    6. কবিরা কদাচিৎ অলস।
      • L.F. "O": কোনো কোনো কবি নয় অলস।
    7. মানুষ কদাচিৎ প্রকৃত সুখী।
      • L.F. "O": কোনো কোনো মানুষ নয় প্রকৃত সুখী ব্যক্তি।




    ১১) যে সমস্ত বাক্যের পূর্বে কেবল , কেবলমাত্র , শুধু , শুধুমাত্র , মাত্র , একমাত্র ইত্যাদি শব্দগুলি মধ্যে যে কোনো একটি শব্দ থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে উদ্দেশ্য ও বিধেয় পদের স্থান পরিবর্তন করে 'A' বচনে পরিনত করতে হবে।

    কিন্তু , বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে উদ্দেশ্য ও বিধেয় পদের স্থান পরিবর্তন না করে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।

    আবার , এইরূপ শব্দগুলি যদি উদ্দেশ্য ও বিধেয় পদের মধ্যে বর্তমান থাকে অথবা বাক্যের মধ্যে বর্তমান থাকে। তাহলে উদ্দেশ্য ও বিধেয় পদের স্থান পরিবর্তন না করে 'A' বচনে পরিনত করতে হবে। তবে বাক্যটি যদি সদর্থক হয়।




    যেমন:-

    1. কেবল ধার্মিকরা সুখী।
      • L.F. "A": সকল সুখী ব্যক্তি হন ধার্মিক ব্যক্তি ।
    2. পরিশ্রমিরাই কেবল সৎ হয়।
      • L.F. "A": সকল সৎ ব্যক্তি হয় পরিশ্রমী।
    3. শিশুরাই কেবল সরল।
      • L.F. "A": সকল সরল শিশু হয় শিশু।
    4. কেবল শিশুরাই দরখাস্তকারী নয়।
      • L.F. "E": কোনো শিশু নয় দরখাস্তকারী।
    5. কেবল মেয়েরাই মা হতে পারেন।
      • L.F. "A": সকল ব্যক্তি যারা মা হতে পারেন হয় মেয়ে।




    ১২) যে সমস্ত বাক্যের সঙ্গে ব্যতীত , ছাড়া , বাদে ইত্যাদি শব্দগুলি থাকে এবং উদ্দেশ্য থেকে নির্দিষ্ট করে বাদ দেওয়া হয়ে থাকে তাহলে বাক্যটিকে 'A' বচনে পরিনত করতে হবে। কিন্তু , যদি অনির্দিষ্ট করে বাদ দেওয়া হলে 'I' বচনে পরিনত করতে হবে।
    আবার , এই রূপ বাক্যগুলি যদি নঞর্থক হয় তাহলে উদ্দেশ্য ও বিধেয় পদের স্থান পরিবর্তন করে 'A' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. পরিশ্রমী ব্যতীত কেউই সফল হয় না।
      • L.F. "A": সকল সফল ব্যক্তি হয় পরিশ্রমী।
    2. একটি ধাতু ছাড়া সব ধাতুই কঠিন।
      • L.F. "I": কোনো কোনো ধাতু হয় কঠিন ধাতু।
    3. একজন বাদে সব মানুষই সুখী।
      • L.F. "I": কোনো কোনো মানুষ হয় সুখী।
    4. একজন বাদে সব কবিই সুখী।
      • L.F. "I": কোনো কোনো কবি হয় সুখী।
    5. পরিশ্রমী ছাড়া কেউ সফল হতে পারে না।
      • L.F. "A": সকল সফল হওয়া ব্যক্তি হয় পরিশ্রমী।
    6. ছাত্ররা ব্যতীত কেউই এই পুরস্কারের যোগ্য নয়।
      • L.F. "A": সকল এই পুরস্কারের যোগ্য ব্যক্তি হয় ছাত্র।
    7. পারদ ছাড়া সব ধাতু কঠিন।
      • L.F. "A": সকল ধাতু (পারদ ছাড়া) হয় কঠিন।




    ১৩) যে সমস্ত বাক্যের উদ্দেশ্যের পরিমান নির্দিষ্ট করে উল্লেখ করা থাকে না। সেই সমস্ত বাক্যগুলিকে বাস্তব জ্ঞানের সাহায্যে A ,E , I এবং O ইত্যাদি বচনে প্রকাশ করতে হবে।




    যেমন:-

    1. মানুষ জ্ঞানী।
      • L.F. "I": কোনো কোনো মানুষ হয় জ্ঞানী।
    2. তিমি স্তন্যপায়ী।
      • L.F. "A": সকল তিমি হয় স্তন্যপায়ী প্রাণী।
    3. একটি বালক চতুর।
      • L.F. "I": কোনো কোনো বালক হয় চতুর।
    4. একটি বালক চতুর নয়।
      • L.F. "O": কোনো কোনো বালক নয় চতুর।
    5. মানুষ সর্বজ্ঞ নয়।
      • L.F. "E": কোনো মানুষ নয় সর্বজ্ঞ।
    6. শিশুরা সরল।
      • L.F. "A": সকল শিশু হয় সরল।
    7. মানুষ পূর্ণ নয়
      • L.F. "E": কোনো মানুষ নয় পূর্ণ।
    8. ফুল সুন্দর।
      • L.F. "A": সকল ফুল হয় সুন্দর বস্তু।




    ১৪) যে সমস্ত বাক্যের উদ্দেশ্যের পরিমান বাস্তব জ্ঞানের সাহায্যে যাচাই করা যায় না। সেই সমস্ত বাক্যগুলিকে বিশেষ বচনে রুপান্তরিত করতে হবে। অর্থাৎ , যদি বাক্যটি সদর্থক হয় তাহলে 'I' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হলে 'O' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. ধর্ম ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারে না।
      • L.F. "O": কোনো কোনো মানুষ নয় এমন যারা ধর্ম ছাড়া বাঁচতে পারে।
    2. পন্ডিতরা অর্থলোভী হয়।
      • L.F. "I": কোনো কোনো পন্ডিত ব্যক্তি হন অর্থলোভী।
    3. মহিলারা ফুলবল খেলতে পারে।
      • L.F. "I": কোনো কোনো মহিলা হন এমন যারা ফুটবল খেলতে পারে।
    4. সাহিত্যিকরা নাট্যকার হলেও হতে পারে।
      • L.F. "I": কোনো কোনো সাহিত্যিক হন নাট্যকার।
    5. কবিরা দার্শনিক হলেও হতে পারেন।
      • L.F. "I": কোনো কোনো কবি হন দার্শনিক।




    ১৫) যে সমস্ত বাক্যে যখন কোনো বিশিষ্ট নাম , কোনো সর্বনাম পদ , কোনো নির্দিষ্ট বিশিষ্ট পদ , কোনো সমষ্টি বাচক পদ , কোনো গুণবাচক পদ , কোনো বচনের উদ্দেশ্য হবে তখন বচনটি সব সময়ই সামান্য বচন হবে। অর্থাৎ , বাক্যটি যদি সদর্থক হলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হলে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. এভারেস্ট পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ।
      • L.F. "A": এভারেস্ট হয় পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ।
    2. সে আজ স্কুলে যাবে না।
      • L.F. "E": সে নয় এমন ব্যক্তি যে আজ স্কুলে যাবে।
    3. সে গায়ক নয়।
      • L.F. "E": সে নয় গায়ক।
    4. রবীন্দ্রনাথ বিশ্বকবি।
      • L.F. "A": রবীন্দ্রনাথ হন বিশ্বকবি।
    5. ভিক্ষা করা সদগুণ নয়।
      • L.F. "E": ভিক্ষাবৃত্তি নয় সদগুণ।




    ১৬) যদি কোনো বাক্যের সঙ্গে 'আছে' শব্দটি যুক্ত থাকে তাহলে বাক্যটিকে 'I' বচনে পরিনত করতে হবে।
    আবার , যদি কোনো বাক্যের সঙ্গে 'নেই' শব্দটি যুক্ত থাকে তাহলে বাক্যটিকে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।

    যেমন:-

    1. লাল ফুল আছে।
      • L.F. "I": কোনো কোনো ফুল হয় লাল।
    2. কৃষ্ণবর্ণের মানুষ আছে।
      • L.F. "I": কোনো কোনো মানুষ হয় কৃষ্ণবর্ণ।
    3. লাল ফুলের গন্ধ নেই।
      • L.F. "E":কোনো লাল ফুল নয় গন্ধযুক্ত।
    4. গোলাকার চতর্ভুজ নেই ।
      • L.F. "E": কোনো চতুর্ভুজ নয় গোলাকার বস্তু।




    ১৭) এমন কিছু বাক্য আছে যেগুলির বাস্তবে কোনো অস্তিত্ব নেই। এইরূপ বাক্যগুলিকে সামান্য বচনে রুপান্তরিত করতে হয়। অর্থাৎ , বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।



    যেমন:-

    1. পরি নেই।
      • L.F. "E": কোনো পরি নয় অস্তিত্বশীল।
    2. ঈশ্বর আছেন।
      • L.F. "A": সকল ঈশ্বর হন অস্তিত্বশীল।
    3. ভুত আছে।
      • L.F. "A": সকল ভুত হয় অস্তিত্বশীল।
    4. ভুত নেই।
      • L.F. "E": কোনো ভুত নয় অস্তিত্বশীল।
    5. মৎস্য কন্যা নেই
      • L.F. "E": কোনো মৎস্য কন্যা নয় অস্তিত্বশীল।




    ১৮) প্রাকল্পিক বচনগুলিকে নিরপেক্ষ বচনে রুপান্তরিত করার সময় সামান্য বচনে রুপান্তরিত করতে হয়। অর্থাৎ , বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. যদি মেঘ করে তবে বৃষ্টি হয়।
      • L.F. "A": সকল মেঘ করার ক্ষেত্র হয় বৃষ্টি হওয়ার ক্ষেত্র।
    2. যদি কেউ মানুষ হয় তবে সে বুদ্ধিমান।
      • L.F. "A": সকল মানুষ হয় বুদ্ধিমান।
    3. যদি কোনো বস্তু দুস্প্রাপ্য হয় তবে তা সস্তা হবে না।
      • L.F. "E": কোনো দুস্প্রাপ্য বস্তু নয় সস্তা।




    ১৯) জিজ্ঞাসা বোধক বাক্যগুলিকে তার উত্তরের দিকে লক্ষ্য রেখে বচনে রুপান্তরিত করতে হবে। অর্থাৎ , জিজ্ঞাসা বোধক বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'E' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. কোন শিক্ষক বুদ্ধিমান নয় ?
      • L.F. "A": সকল শিক্ষক হয় বুদ্ধিমান।
    2. কোন মা নিজের সন্তানকে ভালবাসেন না ?
      • L.F. "A": সকল মা হন এমন যাঁরা নিজের সন্তানকে ভালবাসেন।
    3. মানুষ ও পশু কি এক?
      • L.F. "E": কোনো মানুষ নয় পশু।
    4. অশান্তি কে চায়?
      • L.F. "E": কোনো মানুষ নয় এমন যে অশান্তি চায়।




    ২০) যে সমস্ত বচনের উদ্দেশ্যের পরিমান নির্দিষ্ট করে বা সুস্পষ্ট করে উল্লেখ করা থাকে না। সেই সমস্ত বচনগুলিকে বলা হয় নৈব্যক্তিক বচন। এই সমস্ত বচন্গুলিকে প্রয়োগ করার সময় আবহওয়া এবং সময়সূচক শব্দ দিয়ে যোগ করে সামান্য বচনে প্রয়োগ করতে হয়।




    অর্থাৎ , বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।

    যেমন:-

    1. এখন সকাল।
      • L.F. "A": বর্তমান সময়টি হয় সকাল।
    2. এখন অন্ধকার।
      • L.F. "A": বর্তমান সময়টি হয় অন্ধকার।
    3. এখন বৃষ্টি হচ্ছে।
      • L.F. "A": আবহাওয়াটি হয় বৃষ্টিপূর্ণ।
    4. এখন গরম নয়।
      • L.F. "E": বর্তমান সময়টি নয় গরম।




    ২১) যে সমস্ত বাক্যগুলি আদেশসূচক , ইচ্ছাসূচক , বিস্ময়সূচক ইত্যাদি বাক্য বোঝায় সেই বাক্যকে সামান্য বচনে রুপান্তরিত করতে হবে। অর্থাৎ , বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তাহলে 'A' বচনে এবং বাক্যটি যদি নঞর্থক হয় তাহলে 'E' বচনে পরিনত করতে হবে।




    যেমন:-

    1. তুমি দীর্ঘজীবী হও।
      • L.F. "A": তুমি দীর্ঘজীবী হও হয় আমার কামনা।
    2. তুমি সুখী হও।
      • L.F. "A": তুমি সুখী হও হয় আমার কামনা।
    3. ছাত্রদের সর্বত্রভাবে পরিশ্রমী হওয়া উচিত ।
      • L.F. "A": সকল ছাত্র হয় এমন যারা পরিশ্রমী।



    আরো পড়ুন আর নিজেকে তৈরি করুন নীচের দেখো







    বাক্যকে বচনে পরিনত করার নিয়ম কি?








    Proposition Rules
    বাক্যকে বচনে পরিনত করার নিয়ম কি?

    যদি তোমাদের এগুলো ভালো লাগে তাহলে কোমান্ড কর আর শেয়ার কর | তাহলে আমি আরও লিখব তোমাদের জন্য |

    2 comments:

    1. কবিরা ভাবুক হয়


      এমন নয় যে দার্শনিক ভাবুক নয়

      এই দুটির বচন রূপ কি হবে????

      ReplyDelete
      Replies
      1. ১)I= কোনো কোনো কবি হয় ভাবুকব্যক্তি
        ২)I= কোনো কোনো দার্শনিকব্যক্তি হয় ভাবুকব্যক্তি

        Delete


    Contact Us

    Email:- soumyadipmandal9@gmail.com